আইফোনের “আই” মানে কি? অ্যাপলের “আই” রহস্য

আইফোন, আইপড কিংবা আইপ্যাড; টেক জায়ান্ট অ্যাপলের প্রায় সব গ্যাজেটের নাম শুরু হয় “আই”(I) দিয়ে। কিন্তু এই “আই” দিয়ে আসলে কি বোঝানো হয়, তা হয়তো অনেকেরই অজানা। চলুন আজ তাহলে এই “আই” রহস্য উন্মোচন করা যাক।
প্রকৃতপক্ষে অ্যাপলের “আই” এর কোন সুনির্দিষ্ট পূর্ণাঙ্গ রূপ নেই। ১৯৯৮ সালে যখন প্রথম আইম্যাক কম্পিউটার বাজারে আসে, তৎকালীন অ্যাপলের সিইও স্টিভ জবস বলেন যে ইন্টারনেটের সাথে ম্যাকিনটশের সহাবস্থানের জন্য এই কম্পিউটারকে “আইম্যাক” বলা হয়েছে। এছাড়াও তিনি আইম্যাককে এমন একটি

গ্যাজেট হিসেবে আখ্যা দেন যার বৈশিষ্ট্য হবে (Internet, Individual, Instruct, Inform, Inspire) ইত্যাদির সমন্নয় এবং “আই”(I) মূলত সে বৈশিষ্ট্যগুলোই নির্দেশ করে।

আইম্যাকের জনপ্রিয়তার কারণে পরবর্তীতে অ্যাপল তাদের অন্যান্য গ্যাজেটের নামকরণেও আদ্যাক্ষর হিসেবে “আই” ব্যবহার করে। এর ধারাবাহিকতায় ১৯৯৯ সালে আইবুক এবং আইমুভি, ২০০১ সালে আইটিউনস এবং আইপড, ২০০২ সালে আইচ্যাট, ২০০৬ সালে আইওয়েব এবং ২০০৭ সালে প্রথম স্মার্টফোন হিসেবে আইফোন বাজারে আসে।

তবে বর্তমানে নতুন গ্যাজেট নিয়ে আসার ক্ষেত্রে অ্যাপল “আই” এর ঐতিহ্য থেকে কিছুটা সরে এসেছে। হালের অ্যাপল টিভি এবং অ্যাপল ওয়াচ তারই প্রমাণ। তবে অ্যাপল কি এই ধারা বজায় রাখবে নাকি পুরনো ঐতিহ্যে ফিরে যাবে সেটই এখন দেখার বিষয়।

 

Author: Guest

Leave a Reply

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here