দেখে নিন বিকাশ আ্যপের শুবিধা ও অশুবিধা গুলো

বিকাশ আ্যপের Download Link  Click Here

কী কী সুবিধা থাকছে বিকাশ অ্যাপে?

চমৎকার ইউজার ইন্টারফেইসের অ্যাপটি বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় ব্যবহার করা যাবে। অ্যাপে প্রবেশ করে হোম পেইজ পাওয়া যাবে বিকাশ ব্যালেন্সের তথ্য।

আর যেসব সুবিধা থাকছে:

১। এজেন্টের নাম্বার টাইপ করার ঝামেলা নেই। কিউআর কোড (QR Coder)-এর মাধ্যমে এজেন্ট নাম্বার স্ক্যান করে ক্যাশ আউট করতে পারবেন।

২। টাকা রিচার্জঃ নিজের নাম্বার অটো সিলেক্ট করার সুবিধা রয়েছে।

৩। রিকয়েস্ট মানিঃ নিজের বিকাশের ব্যালেন্স শেষ হয়ে গেলে অন্য অ্যাকাউন্টধারীর কাছে টাকার পরিমাণ উল্লেখ করে রিকোয়েস্ট করার সুবিধা রয়েছে।

৪। সেন্ড মানি একদম ফ্রি। ক্যাশ আউটে হাজারে ১৫ টাকা করে কাটবে।

অ্যাপের একদম উপরের ডান পাশে থাকছে সেটিংস আইকন ও বামপাশে থাকছে নোটিফিকেশন আইকন। কোনো নোটিফিকেশন আসলে তা নোটিফেকেশন আইকনে পাওয়া যাবে।

৫। কন্টাক্ট থেকে নাম্বার সিলেক্ট করে সেন্ড মানি, টাকা রিচার্জ করা যাবে।

৬। পিন চেঞ্জ করা যাবে।

৭। পূর্ববর্তী ট্রান্সেকশনের সামারি দেখা যাবে।

কী কী সমস্যা রয়েছে বিকাশ অ্যাপে?

১/ পর পর দুইবার ভুল পিন নাম্বার দিলে ৬ ঘন্টার জন্য অ্যাকাউন্টটি ব্লক হয়ে যাবে। ৬ ঘন্টা পর অ্যাকাউন্টটি খুলে যাওয়ার পর যদি ১ ঘন্টার মধ্যে ভুল পিন দিয়ে চেষ্টা করা হয় তাহলে অ্যাকাউন্টটি ব্লক হয়ে যাবে। পরে কাস্টমার কেয়ারে গিয়ে অ্যাকাউন্টটি পুনরায় চালু করতে হবে।

২/ অ্যাপটি ইন্টারনেট ছাড়া চলবে না। যদিও ইন্টারনেট অবশ্য ছাড়া কোন ফাইন্যান্স অ্যাপ-ই চলে না।

৩/ অ্যাপটির সাইজ ২৬ মেগাবাইট, যা অনেকটা ভারি।

৪/ গ্যালারি থেকে ছবি সিলেক্ট করার অপশন থাকলেও ছবি সিলেক্ট করা যায় না বলে অভিযোগ রয়েছে।

৫/ এক মোবাইল থেকে একটির বেশি বিকাশ অ্যাকাউন্ট চালানো সম্ভব নয়। যদিও থার্ড পার্টি অ্যাপ ব্যবহার করে একাধিক অ্যাকাউন্ট চালাতে পারবেন।


টেকহাব এর সাথে থাকবেন। কপিরাইট © ২০১৭ | প্রকাশিত লেখাসমুহ টেকহাব.কম.বিডি দ্বারা সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুগ্রহপূর্বক অনুমতি ব্যতীত এই ওয়েবসাইটের কোন লেখা অন্য কোথাও প্রকাশ করবেন না করলে আইনত ব্যবস্তা গ্রহন করা হবে। ধন্যবাদ।

Author: UDOY

Hlw,I am Udoy Saha Abir.

Leave a Reply

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here