ভয়েসেই আনলক ‘মেইট২০’ সিরিজের স্মার্টফোন

সেনজেন, চীন থেকে: 

বহুজাতিক চীনা কোম্পানি হুয়াওয়ের নতুন ফ্লাগশিপ স্মার্টফোন ‘হুয়াওয়ে মেইট ২০’ সিরিজ চীনের বাজারে এসেছে।

গত ১৬ অক্টোবর যুক্তরাজ্যের বাজারে আসা হুয়াওয়ের প্রিমিয়ার সেগমেন্টের সর্বাধুনিক ফোন হুয়াওয়ে মেইট ২০ সিরিজ ২৬ অক্টোবর চীনের সাংহাইতে উদ্বোধন করা হয়।

হুয়াওয়ে মেইট ২০ সিরিজের চারটি আলাদা সংস্করণে রয়েছে বন আইডি (ভয়েস রিকগনিশন) প্রযুক্তি। এর মাধ্যমে ব্যবহারকারীর ভয়েসের মাধ্যমে সহজেই ফোনটি আনলক করা যাবে। এছাড়া আঙুলের ছাপ এবং থ্রিডি ফেইস আইডির মাধ্যমেও ফোনটি আনলক করা যাবে।

ফ্লাগশিপ এ ডিভাইসের প্রসেসর হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির চিপ কিরিন ৯৮০। ৬.৫, ৬.৩ এবং ৭.২ ইঞ্চি -এ তিনটি আকারের ফুল ওএলইডি পর্দার ফোন পাওয়া যাবে। মেইট টুয়েন্টি সিরিজের রম আর র্যামের চারটি ভিন্ন কনফিগারেশনের মধ্যে সর্বনি¤œ র্যাম ৬ জিবি এবং রম ৫১২ জিবি।

ডিভাইসে রয়েছে ৪২০০ এমইএইচ ব্যাটারি। দ্রুত চার্জের জন্য রয়েছে তার এবং তারবিহীন সুপার চার্জের সুবিধা। এর সঙ্গে রয়েছে চমকপ্রদ রিভার্স চার্জিং সিস্টেম। যার মাধ্যমে চার্জ ফুরিয়ে গেলে আরেকটি মেইট স্মার্টফোনের সাথে পাশাপাশি ধরেই চার্জ করা যাবে।

চার্জারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এই ফোনে জার্মানির টিইউভি সার্টিফাইড ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

পানি ও ধূলোবালি নিরোধক এ ফোনটিতে রয়েছে তারবিহীন প্রজেক্টর সুবিধাও। ব্যবহার করা হয়েছে ল্যাপটপ লেভেল প্রসেসর, যা ব্যবহারকারীদের নেটবুক ব্যবহারের অভিজ্ঞতা দেবে।

মেইট ২০ সিরিজের পেছনে রয়েছে তিনটি ক্যামেরা। এর মধ্যে একটি ক্যামেরা ৪০ মেগা পিক্সেলের। অন্য দু’টি যথাক্রমে- ৮ মেগা পিক্সেলের টেলিফটো এবং ২০ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল লেন্স ক্যামেরা। সব মিলিয়ে ছবি তোলার ক্ষেত্রে ১৬ থেকে ২৭০ মিলি মিটার জুম লেন্সের সুবিধা পাওয়া যাবে ফোনগুলোতে।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই) প্রযুক্তির সুবিধা থাকা এ ডিভাইসের ক্যামেরা শুধু ছবি তোলার জন্যই নয়, বিভিন্ন তথ্য দিয়েও সহযোগিতা করবে। যেমন কোন খাবারে কি পরিমাণ ক্যালরি আছে তা জানিয়ে দেবে হাতের ফোনটি। কোনো কিছুর ছবি তুলে সেটিকে ত্রিমাত্রিক (থ্রিডি) হিসেবে উপস্থাপন করা যাবে।

মেইট ২০ এর ডিজাইনেও এসেছে পরিবর্তন। আগের স্মার্টফোনগুলোর তুলনায় বেড়েছে পর্দার আকার। বেশিরভাগ স্মার্টফোনে পেছনে ফিঙ্গার প্রিন্টের সুবিধা থাকলেও মেইট টোয়েন্টিতে সেটি ভেসে উঠবে সামনের পর্দাতেই।

গত ১৬ অক্টোবর থেকে ইউরোপের বাজারে আসা মেইট ২০ সিরিজের ফোনটির সর্বনিম্ন মূল্য ৭৯৯ ইউরো (এক ইউরো তে বাংলাদেশি প্রায় ৯৬ টাকা) এবং সবচেয়ে দামি পোরশে ডিজাইনে মেইট টোয়েন্টি সর্বোচ্চ মূল্য ২০৯৫ ইউরো।

Sorce: https://www.banglanews24.com/

Author: UDOY

Hlw,I am Udoy Saha Abir.

Leave a Reply

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here